জাতীয় দলে অাসছে নতুন মোস্তাফিজ

প্রথমে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ, পরে বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগ। পারফরম্যান্স দিয়ে নজর কেড়েছেন কিশোর শরিফুল ইসলাম। নিজের প্রতিভাকে আরো বিকশিত করতে শৃঙ্খলা মেনে কঠোর পরিশ্রম ও ফিটনেসে মনোযোগী হওয়ার প্রত্যয় শরিফুলের কণ্ঠে।

সময় সংবাদকে জানিয়েছেন, মোস্তাফিজের মত পারফরম্যান্স দিয়ে আলাদা করে মনোযোগ আকর্ষণ করতে চান এই ১৬ বছর বয়সী পেসার।

হালকা পাতলা গড়ন। উচ্চতা ৬ ফুট তিন ইঞ্চি। বয়সটা সতেরো পার হয়নি। কৈশোরের সারল্য চোখে মুখে। কিন্তু ফাস্ট বোলিংয়ের মত কঠিন কাজটা সামাল দিচ্ছেন ভালোভাবে। পঞ্চগড়ের শরিফুল ঢাকায় এসে নাম করেছেন। নজর কেড়েছেন অল্প দিনে।

প্রথম, দ্বিতীয় বিভাগ নয়। সরাসরি প্রিমিয়ার লিগ। এলেন, দেখলেন জয় করলেন। তারপর বিসিএলেও ধারাবাহিক। এখনো ঘোর কাটেনি। তবে স্বপ্নের ঘরে তার বসবাস। কিছুটা ভয়ও হয়। না জানি কখন হানা দেয় ইনজুরি।

শরিফুল বলেন, ‘ছোট থেকেই পেস বোলার হওয়ার ইচ্ছা। ইচ্ছা ছিলো যে, ক্রিকেট খেললে পেস বোলার হবো। আমার উচ্চতাটাও আল্লাহ’র রহমতে ভালো। এখন ডিসিপ্লিনের মধ্যে থাকলে আশা করছি ফিটনেস ভালো থাকবে এবং ইনজুরিও আসবে না।’

শরিফুলের প্রশংসা এখন চারদিকে। পেস বোলিং কোচ চম্পাকা রামানায়েকে তো রীতিমত অবাক। সাবেক দুই অধিনায়ক হাবিবুল বাশার ও খালেদ মাসুদেরও প্রশংসা কুড়িয়েছেন। সবাই দিয়েছেন নানা পরামর্শ। সেগুলোকে চলার পথের সঙ্গী করেছেন শরিফুল।

‘আমি তো নতুন। আমাকে দেখে উনি (চাম্পাকা) অবাক হয়ে গিয়েছিলেন যে, নতুনদের মধ্যে এমন ভালো পেস বোলার আছে। উনি অনেক কিছু শিখিয়েছেন। আরও অনেক কিছু শিখবো উনার কাছ থেকে ইনশাল্লাহ। এছাড়া সবাই খুব টেক কেয়ার করে। তারা বলে, ভালো করতে হবে, অনেক দূর যেতে হবে।’

অস্ট্রেলিয়ান পেসার মিচেল স্টার্ক তার আদর্শ। তবে হতে চান দেশের আইকন মোস্তাফিজের মত। শরিফুল না বললেও মোস্তাফিজের সঙ্গে মিল খুঁজে পাওয়া যাবে খুব সহজে।

‘আমি ফলো করি স্টার্ককে তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মোস্তাফিজ ভাই’র মতো হতে ইচ্ছা করে।’ শরিফুলে স্বপ্নের পুরোটা জুড়ে লাল সবুজের জার্সি। সেই স্বপ্নটা কখনো কখনো নাকি কেড়ে নেয় রাতের ঘুমও।
সূত্র : সময় টিভি